প্রধান মেনু খুলুন

মোহনদাস করমচাঁদ গান্ধী (গুজরাটি ঠারে: મોહનદાસ કરમચંદ ગાંધી মোহান্‌দাস্‌ কারাম্‌চান্দ্‌ গান্ধী) বা মহাত্মা গান্ধী (অক্টোবর ২, মারি ১৮৬৯ - জানুয়ারী ৩০, মারি ১৯৪৮) ভারতর নাঙজাদা রাজনীতিবিদ আগো, ভারতর স্বাধীনতা আন্দোলনর গজর থাকর বারো প্রভাবশালী নেতা আগো। গিরক এগো সত্যাগ্রহ আন্দোলনর লিংখাতপাগো। আন্দোলন এহার পরিচালিত অসিলতা অহিংসা মতবাদ বা দর্শনর গজে বারো এহানরে ভারতর স্বাধীনতা আন্দোলনর অন্যতম চালিকা শক্তিহান বুলিয়া মাততারা, বিশ্বর হাবি মানুর স্বাধীনতা বারো অধিকার আলথকে পানির অনুপ্রেরণা আহান বুলানি য়াকরের।

মোহনদাস করমচাঁদ গান্ধী
জরমঅক্টোবর ২, মারি ১৮৬৯
পরবন্দর, গুজরাট, ব্রিটিশ ভারত
মরনজানুয়ারী ৩০, মারি ১৯৪৮ (৭৮ বছর)
নয়া দিল্লী, ভারত
হত্যা
জাতীয়তাহানভারতীয়
Other namesমহাত্মা গান্ধী
নাঙ ফিতসেতাভারতীয় স্বাধীনতা আন্দোলন
শিক্ষাইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডন
রাজনীতির দলহানভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস
লিচেৎহিন্দু ধর্ম
হেয়ক/মিনককস্তুরবা গান্ধী
সৌ-সুমারাহরিলাল
মনিলাল
রামদাস
দেবদাস
স্বাক্ষরGandhi signature.svg

গান্ধী গিরক ভারতে বারো বিশ্ব মিমাঙে মহাত্মা (মহান আত্মা) বারো বাপু (বাপক) নাঙে পরিচিত। ভারত সরকারে গিরক এগোরে ভারতর জাতির জনকগো বুলিয়া ঘোষণা দেসি। অক্টোবর ২ তাঁর জরমর দিনউহান ভারতে গান্ধী জয়ন্তী বুলিয়া নিয়াম মর্যাদালো পালিত অর বারো অরে দিনঅহাত ভারতে সরকারী ছুটি থার। মারি ২০০৭ সালর জুন ১৫ জাতিসংঘর সাধারণ সভাত অক্টোবর ২-রে আন্তর্জাতিক অহিংস দিবস বুলিয়া ঘোষণা দেনা অসে। জাতিসংঘর হাবি দেশ দিবস এহান পালন করতাই বুলিয়া য়াথাঙ দিলা।[১]

অউ সমেইর শিক্ষিত ব্রিটিশ আইনজীবী আগো হিসেবে, গান্ধী পয়লা তাঁর অহিংস শান্তিপূর্ণ নাগরিক মতাদর্শ হারপুয়াদিলোতা দক্ষিণ আফ্রিকাত হিন-লাংলানো আসিলা ভারতীয় মানু অউতার অধিকার আদায়র লালফামে। ভারতে আলথক ইয়া আহানির পিসেদে নেই লেইরাপা খেতুয়াল কামুলা কতগরেলো বৈষম্যমূলক কর আদায় ব্যবস্থা বারো আর আর খেইপা খেইপির বিরুদ্ধে লালফামর হেইচা করেসিল । ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসর নেতৃত্বৎ আহানির পিসে গান্ধী গিরকে আস্তা ভারতএহাত লেইরাপাত্ত মুক্তি, জেলেইর স্বাধীনতা, বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠিরমা ভ্রাতৃত্ত, জাত বংশর খেইপা খেইপি, অর্থনৈতিক সচ্ছলতা ইত্যাদি নানান বিভিন্ন বিষয়র বারে প্রচার করানি ইকরলো। উদ্দেশ্যহানচক আকহান, স্বরাজ অর্থাৎ ভারতরে বাইরা শাসনেত্ত মুক্ত করানিরকা। মারি ১৯৩০ সালে গান্ধী গিরকে ভারতে নুনর গজে করর বিরুদ্ধে ৪০০ কিলোমিটার (২৪৮ মাইল) দিগল ডান্ডি নুন কুচকাওয়াজে করিয়া প্রতিবাদ করেসিল, যেহানরে পিসেদে মারি ১৯৪২ সালে ইংরেজ শাসকলকেইর মুঙে ভারত ছাড়ো লালফামর অকরাগো বুলানি অর। তা বিভিন্ন সময়ত বিভিন্ন কারণে বাক্কা কতমাউ দক্ষিণ আফ্রিকা বারো ভারতে ফাটকে হমাসিল।

মহাত্মা গান্ধী হাবি পরিস্থিতিত তার অহিংস মতবাদ বারো সত্যেহানরে মৌতুপ দরিয়া থনা পারিসিল। তা নেই লেইরাপার সাদে সাদাসিদা জীবনযাপন করলো বারো আশ্রম আহান হংকরেসিল। তার ফুতিফালি হাবি ঐতিহ্যবাহী ভারতীয় ফেইচম বারো শাল যেতা গিরকে নিজেই চরকাক বুলেসিল। তা নিরামিষ খেইলো, জীবনর লমনির পাতাপে ফলমূল বপকরে খেইলো। আত্মশুদ্ধি বারো প্রতিবাদরকা গিরকে নিয়াম সময় কিত্তাউ নাখেয়া হেলকরিয়া থাইল।

জরম বারো শিক্ষাসম্পাদনা

মোহনদাস করমচাঁদ গান্ধী মারি ১৮৬৯ সালে পোরবন্দরর হিন্দু মোধ পরিবারে জরম নেসিলগা। তার বাপক করমচাঁদ গান্ধী আসিলতা পোরবন্দরর প্রধান মন্ত্রীগো। মালক পুতলিবা করমচাঁদর চতুর্থ মইলকগো। পুতলিবা গিথানক প্রনামী বৈষ্ণব গোষ্ঠীরগো আসিলি। করমচাঁদর পয়লা মইলক দিয়গিয়ে আকেইগো করিয়া জেলেইশৌ পাসিলা। তানু অকালে মরিয়া গেসিলা বুলিয়া মাততারা। ধর্ম কর্ম করিয়া থাইরি মালকর লগে থায়া বারো গুজরাটর জৈন প্রভাবিত পরিবেশেত্ত দাঙর ইয়া হুরুকাং কালেত্তই তা অহিংসা, নিরামিষ খানা, আত্মশুদ্ধিরকা হেলকরানি, আর আর জাতর মানুর লগে হবাবালা ইয়া থানি ইত্যাদি নানান বিষয় হিকানি অকরেসিল।

 
গান্ধী বারো তার মইলক কস্তুরবা গান্ধী (১৯০২ সালে)

মালক-বাপকে মারি ১৮৮৩ সালে মাত্র ১৩ বছর বয়সে মহাত্মা গান্ধী গিরকরে কস্তুরবা মাখাঞ্জী গিথানকর লগে লহঙ দেসিলা। তানুরতা চারিগো মুনিশৌ অইলা উতার নাঙ হরিলাল গান্ধী, (১৮৮৮) মনিলাল গান্ধী, (১৮৯২) রামদাস গান্ধী (১৮৯৭) এবং দেবদাস গান্ধী (১৯০০) সালে। মহাত্মা গান্ধী হুরুকাং কালে অমাটিক হবা ছাত্রগো নাসিল। কোন রকম গুজরাটর ভবনগরর সামালদাস কলেজেত্ত ম্যাট্রিক পাশ করেসিল। তিনি কলেজর জীবন উহানৌ হারৌহান নাসিল কিয়াবুল্লে গরতাই চাসিলা তা ব্যারিস্টার আগো অইতয়।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "General Assembly adopts texts on day of non-violence,...", un.org, United Nations, 15 June 2007। খমকরিসি দিনহান 2007-07-01। 

ওয়েব মিলাপসম্পাদনা

মহাত্মা গান্ধী এহানর বারে আরকউ পৌ পানা মনেইলে উইকিপিডিয়ার বনকপ্রকল্প অতাত বিসারিয়া চানা পাররাং:

  সংজ্ঞা, উইকিনারি হানাত্ত
  লেরিক, উইকিলেরিক হানাত্ত
  উক্তি, উইকিউক্তি হানাত্ত
  রচনা চারুক, উইকসোর্স হানাত্ত
  ছবি বারো মিডিয়া, কমন্স হানাত্ত
  পৌ, উইকিপৌ হানাত্ত
  উইকিবিশ্ববিদ্যালয়ত্ত